বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ১২:০২ অপরাহ্ন

২৯ মে থেকে সৌদি আরবে ফের ফ্লাইট শুরু করবে বিমান

রিপোটারের নাম / ১২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : সোমবার, ২৪ মে, ২০২১
add

আগামী ২৯ মে থেকে সৌদি আরবে বিমানের ফ্লাইট ফের শুরু হচ্ছে। রবিবার (২৩ মে) রাতে বিমান বাংলাদেশের এয়ারলাইন্সের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়। করোনা পরিস্থিতিতে সৌদি সরকারের করাকরি বিধিনিষেধের কারণে গত ২০ মে থেকে দেশটিতে ফ্লাইট চলাচল বন্ধ রেখেছিল বিমান।

এতে বলা হয়, সৌদি আরবে হোটেল কোয়ারেন্টাইন প‍্যাকেজ সুবিধা নিশ্চিত করা সাপেক্ষে আগামী ২৯ মে থেকে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করতে যাচ্ছে বিমান। সৌদিগামী যাত্রীদের হোটেল বুকিংসহ কোয়ারেন্টাইন প‍্যাকেজ ও বিমানের আসন সংরক্ষণের জন‍্য নিকটস্থ বিমান সেলস কাউন্টার এ যোগাযোগ করার জন্য বিশেষ ভাবে অনুরোধ করা যাচ্ছে। উল্লেখ্য, ভিসার মেয়াদের ওপর অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যাত্রীদের আসন সংরক্ষণ করা হবে।

প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে গত ১০ মে সৌদি আরবের জেনারেল অথরিটি অব সিভিল এভিয়েশন নতুন নিয়ম জারি করে। যা আজ থেকে কার্যকর হওয়ার কথা।

নিয়ম অনুযায়ী, যারা করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নেননি, তারা সৌদি আরবে প্রবেশ করলে ৭ দিন হোটেলে বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। হোটেলের খরচ নিজেকেই বহন করতে হবে। এছাড়া সৌদিগামী সকলের মেডিক্যাল ইন্স্যুরেন্স থাকতে হবে। সৌদি আরবে যাওয়ার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে পিসিআর পদ্ধতিতে করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট আসলে ঢাকা থেকে ফ্লাইটে যাত্রীকে বোর্ডিং ইস্যু করা যাবে। সৌদিতে পৌঁছানোর পর যাত্রীকে আরও দু’বার করোনা টেস্ট করতে হবে। প্রথমবার করতে হবে সৌদি আরবে পৌঁছানোর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে। ষষ্ঠ দিনে আবারও করোনা টেস্ট করতে হবে। এ ছাড়া করোনা টেস্ট করার খরচ যাত্রীকেই বহন করতে হবে। দুই বার টেস্টে নেগেটিভ রিপোর্ট আসলে হোটেল কোয়ারেন্টিন থেকে ৭ম দিনে বাসায় যাওয়া যাবে।

এছাড়া যারা ভ্যাকসিন নিয়েছেন তাদের ভ্যাকসিন নেওয়ার প্রমাণপত্র সঙ্গে রাখতে হবে। তবে ফাইজার-বায়োএনটেকের ২ ডোজ, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ২ ডোজ, মডার্না ২ ডোজ এবং জনসন অ্যান্ড জনসনের টিকার ১ ডোজ যারা নিয়েছেন তারা হোটেলে বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকার বদলে বাসায় কোয়ারেন্টিনে থাকার সুবিধা পাবেন।

এছাড়া সৌদি আরবের পাবলিক প্রসিকিউশন নতুন করে নিয়ম করেছে, কেউ যদি করোনাভাইরাস ছড়ায় তাকে ৫ বছরের জেল এবং সর্বোচ্চ ৫ লাখ সৌদি রিয়াল জরিমানা করা হবে। শাস্তি ভোগের পর ওই ব্যক্তিকে দেশ থেকে বিতারিত করা হবে এবং সে আর কোনো দিন সৌদি আরবে প্রবেশ করতে পারবে না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ