বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ১১:২৩ পূর্বাহ্ন

সৎ ছেলের সঙ্গে প্রেম, তারপর স্বামীকে ছেড়ে বিয়ে

রিপোটারের নাম / ১৪০ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০২০
add

প্রেম মানে না কোনো বাধা, মানে না কোনো ব্যবধান ও সম্পর্কের বেড়াজাল। কখনও কখনও হয়তো কোনো কোনো প্রেমের সম্পর্ক সমাজের চোখে দৃষ্টিকটু লাগে…। কখনও প্রবলরকম প্রতিবাদও হতে দেখা যায়। কিন্তু তাতে সেসব ঘটনা কখনও থেমে থাকে না। এমনই এক অবাধ্য প্রেমের ঘটনা ঘটেছে রাশিয়ায়।

দেশটির ক্রাসোন্দার ক্রাই এলাকায় বেশ জনপ্রিয় নাম মারিনা ব্লামাশেভা। সামাজিক মাধ্যমে বহু ফলোয়ার তার। মারিনা ৩৫ বছর অতিক্রম করেছেন। আর তার সৎ ছেলে ভ্লাদিমির তার থেকে ১৫ বছরের ছোট।

বছর দশেক আগে ভ্লাদিমিরের বাবা আরের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল মারিনার। এক দশকের ‘অসুখী’ দাম্পত্যের পর মারিনা বুঝতে পারেন, ‘নাহ তিনি কখনও আরেকে ভালোই বাসেননি। পাশাপাশি এটাও বুঝতে পারেন, তিনি মূলত ভালোবেসেছেন তার সৎ ছেলে ভ্লাদিমিরকেই।

আবার ওদিকে কবে যে ভ্লাদিমিরও তার সৎ মাকেই মনটা দিয়ে বসে আছেন তা নিজেও জানেন না। ব্যাস আর কী! বাবা আরেরের অজান্তেই শুরু হয়ে যায় সৎ মা আর ছেলের প্রেম। শারীরিক-মানসিক সবদিক থেকেই জড়িয়ে যান মারিনা আর ভ্লাদিমির। অসম আর ‘অসামাজিক’ সেই প্রেম এবার গড়ালো বিয়ের পিঁড়ি পর্যন্ত।

বিয়ের পর মারিনা এবং ভ্লাদিমির।

গেল সপ্তায় নিজের স্বামীকে ডিভোর্স দিয়ে সৎ ছেলে ভ্লাদিমিরকে বিয়ে করেছেন মারিনা। রেজিস্ট্রি অফিসে সই-সাবুদের পর রীতিমতো বিয়ের পোশাকে সেজে রিসেপশনেরও আয়োজন করেছেন মারিনা আর ১৫ বছরের ছোট ‘বর’। বেশ কিছু অতিথিও এসেছিলেন।

বিয়ের পর সামাজিক মাধ্যমে মারিনা লিখছেন, আমি আমার সত্যিকারের জীবনসঙ্গীকে খুঁজে পেয়েছি। ইচ্ছে ছিল এ বছরের গোড়ার দিকেই বিয়েটা সেরে ফেলব। কিন্তু লকডাউনের জন্য সেটা হলো না। গত সপ্তাহেই আমরা বিয়ে করেছি।

সবচেয়ে বড় ব্যাপার হলো, মারিনা এবং ভ্লাদিমিরের এই বিয়ে মারিনার আগের স্বামী তথা বর ভ্লাদিমিরের বাবাও মেনে নিয়েছেন। অনেকে অবশ্য সৎ সন্তানের সঙ্গে মারিনার এই বিয়ের সম্পর্ক খোলামনে মানতে পারছেন না। কিন্তু তাতে কী-ই বা যায় আসে…।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ