বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ১২:২৩ অপরাহ্ন

সোর্সের চিঠিই কাল হলো সাংবাদিক রোজিনার

রিপোটারের নাম / ৪৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : বুধবার, ১৯ মে, ২০২১
add

সোর্সের কাছ থেকে একটি চিঠি আনতে গিয়ে সচিবালয়ে ৬ ঘণ্টা অবরুদ্ধ থেকে হেনস্তার শিকার হয়েছেন প্রথম আলোর সিনিয়র সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম। পরে সোমবার রাতে শাহবাগ থানায় মামলা দিয়ে পুলিশের কাছে তাকে সোপর্দ করা হয়।

আজ মঙ্গলবার (১৮ মে) পুলিশ ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন জানালে তাকে কারাগারে পাঠান আদালত। আগামী বৃহস্পতিবার জামিন আবেদনের শুনানির দিন ধার্য রয়েছে।

চিঠিতে আসলে কি ছিল সে বিষয়ে রোজিনা ইসলামের স্বামী মনিরুল ইসলাম মিঠু মঙ্গলবার গণমাধ্যমকে বিস্তারিত জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, আমরা সোমবার গ্রাম থেকে এসেছি শুধু টিকা নেওয়ার জন্য। টিকা নেওয়ার পর রোজিনাকে বললাম চলো আমার সঙ্গে; ও বললো না, আমাকে একজন একটা তথ্য দিবে, আমি সেটা নিব। পরে এক সোর্স একটা চিঠিতে রোজিনাকে কিছু তথ্য দিয়েছে। চিঠিতে ভ্যাকসিনের তিনটা কোম্পানির নাম লেখা ছিল। ভ্যাকসিন নিয়ে তিনটি কমিটির বিষয়ে লেখা ছিল যে কোন কমিটি সুপারিশ করেছে। তবে চিঠিটা রোজিনা খুলেও দেখেনি।

মনিরুল ইসলাম বলেন, রোজিনা চিঠিটা হাতে নিয়ে ভেবেছিল উপরে গিয়ে সচিবদের সঙ্গে কথা বলে জানবে যে, কোনো নতুন তথ্য আছে কি-না। রোজিনা যখন সচিবের রুমের সামনে গিয়ে পিএস কোথায় জানতে চাইলে কনস্টেবল বলে আপা তিনি বাহিরে গেছে আপনি বসেন। তখন রোজিনা বললো তিনি না থাকলে আমার বসা ঠিক হবে? সেসময় কনস্টেবল বললো অসুবিধা নাই বসেন।

তিনি আরও বলেন, রুমে ঢুকার পর সাংবাদিকরা পরে রোজিনাকে যেখানে দেখেছে সেখানেই বসা ছিল। রোজিনা সামনে থাকা ডেইলি স্টার পত্রিকাটা ১০-১২ সেকেন্ড পড়ছে, এমন সময় কনস্টেবল মিজান এসে বলে আপনি এখানে ফাইলের ছবি তুলছেন। পরে রোজিনা বলে আমি কোনো ছবি তুলি নাই, এমনকি মোবাইল বের করেও দেখানো হয়েছে। তখন বলা হয় আপনি তাহলে ব্যাগে কোনো কাগজ নিয়েছেন। এর মধ্যে অতিরিক্ত সচিব চলে আসে। পরে কনস্টেবল মিজান আর পিয়ন রোজিনাকে খুব টানা হেচড়া করে শরীরে দাগ বসিয়ে দেয়।

রোজিনার স্বামী আরও বলেন, পরে তল্লাশি করে ওই চিঠিটা পেয়েছে। চিঠির বিষয়ে তারা জানতে চাইলে রোজিনা বলে এটা আমার এক সোর্স দিয়েছে। তারা সোর্সের নাম শুনতে চাইলে রোজিনা নাম না বলায় তারা বলে এটি তাহলে আপনি এখান থেকে নিয়েছেন। রোজিনা এ কথা শুনে বলে আপনারা যদি মনে করেন এখান থেকে নিয়েছি তাহলে এখান থেকেই। একটা পর্যায়ে অনেক চাপ দেওয়ায় রোজিনা সোর্সের নাম বলে দেয়। পরে তাকে সাড়ে ৬ ঘণ্টা ওখানে আটকে রাখা হয়। ছেড়ে দিচ্ছি ছেড়ে দিচ্ছি বলেও তারা ছাড়েনি।

তিনি বলেন, রোজিনার শরীরে ডায়াবেটিস সহ পাঁচটি সমস্যা রয়েছে। সে অসুস্থ। এর আগে সংবাদ প্রকাশ করার পর বার বার রোজিনাকে হুমকি দেওয়া হয়েছিল। এমন কি মন্ত্রী ও সচিবরা বলেছে রোজিনা আসলে কেউ যেন তার সঙ্গে কথা না বলে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ