বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ১২:৪৯ অপরাহ্ন

শক্তিশালী রূপ নিয়েছে ঘূর্ণিঝড় যশ, বহু গ্রাম প্লাবিত

রিপোটারের নাম / ৬৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৬ মে, ২০২১
add

ঘূর্ণিঝড়ে যশ প্রবল শক্তিশালী রূপ নিয়েছে। কেন্দ্রে বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ১২০ কিমি বেগে বয়ে যাচ্ছে, যা দমকা বা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ১৪০ কিমি পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। জোয়ারের পানির উচ্চতা বেশি হবার কারণে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় প্লাবিত হয়েছে সাতক্ষীরা, ভোলা ও বরগুনাসহ বেশকিছু জেলার বহু গ্রাম।

উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত প্রবল ঘূর্ণিঝড় যশ আরও উত্তর-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর ও ঘনীভূত হয়ে অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড় আকারে একই আলাকায় অবস্থান করছে। ঘূর্ণিঝড় “যশ” এর কারণে সমুদ্র বন্দরসমূহকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। এটি আগামীকাল বুধবার দুপুরের দিকে উত্তর-উড়িষ্যা-পশ্চিমবঙ্গ উপকূল অতিক্রম করতে পারে বলে জানিয়েছে মঙ্গলবার আবহাওয়া অধিদপ্তর।

আবহাওয়া অধিদফতরের সর্বশেষ বিশেষ সতর্কবার্তায় বলা হয়, উত্তর পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত প্রবল ঘূর্ণিঝড় ইয়াস আরও ঘনীভূত হয়ে অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে। এটি আজ বিকেলে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ৫৫৫ কিলোমিটার দক্ষিণ -দক্ষিণ পশ্চিমে ছিল, সন্ধ্যায় তা এগিয়ে ৫৩৫ কিলোমিটার দক্ষিণ -দক্ষিণ পশ্চিমে অবস্থান করছে। একইভাবে কক্সবাজার থেকে বিকেলে ছিল ৫২০ কিলোমিটার দক্ষিণ -দক্ষিণ পশ্চিমে, সন্ধ্যায় তা ৫০৫ কিলোমিটার দক্ষিণ -দক্ষিণ পশ্চিমে অবস্থান করছে। মোংলা বন্দর থেকে ছিল ৪২৫ কিলোমিটার, এখন তা থেকে এগিয়ে ৩২০ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং পায়রা বন্দর থেকে বিকালে ছিল ৪২০ কিলোমিটার দক্ষিণে, এখন তা ৪৩২০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছে।

ভোলা: ভোলার মনপুরায় বাধ ভেঙে এবং জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে ১৫টি গ্রাম। এতে চর কুকরি-মুকরি, ঢালচর, চর পাতলাসহ আশেপাশের ২০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। দেখা দিয়েছে খাবার পানি সংকট।

মোংলা: উপকূলীয় এলাকা মোংলায় মঙ্গলবার (২৫ মে) দুপুরের পর থেকেই দেখা দিয়েছে ঝোড়ো হাওয়া আর বৃষ্টিপাত। সেই সাথে সাগর ও পশুর চ্যানেল বেশ উত্তাল থাকায় সুন্দরবনর সংলগ্ন এলাকার সব জেলেকে দ্রুত নিরাপদে সরিয়ে নিতে মাইকিং করছে কোস্টগার্ড।

পটুয়াখালী: পটুয়াখালীতে জোয়ারের তোড়ে কলাপাড়ার লালুয়া এলাকায় ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধ ভেঙে ৯টি গ্রাম প্লাবিত হওয়ায় পানিবন্দি ৮ হাজার মানুষ বলে জানা গেছে। উত্তাল সাগরের ঢেউয়ের তোড়ে কুয়াকাটা সৈকতের অর্ধশতাধিক অস্থায়ী দোকানপাট ভেসে গেছে।

বাগেরহাট: ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বাগেরহাটের নদী-খালের পানি দ্রুত বাড়ছে। জেলার মোড়েলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স উপজেলা খাদ্যগুদাম চত্বর হাঁটুপানির নিচে। এছাড়া শরণখোলার বলেশ্বর, মোরেলগঞ্জের পানগুছি, মোংলার পশুর, ভৈরব, দড়াটানাসহ সকল নদীর পানি স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ২ থেকে আড়াই ফুট উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

সাতক্ষীরা: সাতক্ষীরায় ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি শুরু হয়েছে। প্রবল জোয়ারের পানি যাতে লোকালয়ে ঢুকতে না পারে সেজন্য শ্যামনগর উপজেলার বাতনীখালী, বুড়িগোয়ালিনী, দুর্গাবাটি এবং কৈখালী এলাকায় ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধ মেরামতের চেষ্টা করছেন স্থানীয়রা।

খুলনা: খুলানার দাকোপ উপজেলার বেশ কিছু জায়গায় বেড়িবাঁধ দুর্বল হয়ে পড়ায় পানির চাপ বাড়লে যেকোনো সময় লোকালয় প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা স্থানীয়দের।

এদিকে, ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে জোয়ারের পানি বেড়ে বরগুনার বড়ইতলা ফেরিঘাট তলিয়ে গেছে। এছাড়া পাথরঘাটার পদ্মা এলাকায় আধা কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ভেঙে পানি ঢুকে পড়েছে লোকালয়ে। মেঘনা-তেঁতুলিয়া নদীর পানি বেড়ে তলিয়ে গেছে ভোলার চর কুকমুকরি, চর নিজামসহ বিভিন্ন নিচু এলাকার বহু গ্রাম। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন নদী পাড়ের মানুষ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ