রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৯:৩১ পূর্বাহ্ন

ভোজ্যতেল সরকারের নির্ধারিত দরে বেচাকেনার আহ্বান

রিপোটারের নাম / ১২২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শনিবার, ১৯ মার্চ, ২০২২
add

সরকার নির্ধারিত দরে পাইকারি বাজারে সয়াবিন ও পাম তেল বেচাকেনা করার আহ্বান জানিয়েছেন খাতুনগঞ্জ বাণিজ্য ও শিল্প সমিতির নেতারা।

চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে সংগঠনটির কার্যালয়ে বৃহস্পতিবার (১৭ মার্চ) এক মতবিনিময় সভায় এই আহ্বান জানান চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম। তিনি খাতুনগঞ্জ বাণিজ্য ও শিল্প সমিতিরও সভাপতি। এ সময় খাতুনগঞ্জের অর্ধশতাধিক ব্যবসায়ী উপস্থিত ছিলেন।

মাহবুবুল আলম ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, আপনারা সরকার নির্ধারিত দরেই কারখানা থেকে ভোজ্যতেল কিনুন। আবার বিক্রির সময়ও সরকার নির্ধারিত দরের চেয়ে বেশি দরে বিক্রি করবেন না।

চট্টগ্রামে খাতুনগঞ্জ বাণিজ্য ও শিল্প সমিতির নেতারা বৈঠকে সিদ্ধান্ত নিলেন- এবার তারা সরকার নির্ধারিত দরে পাইকারি বাজারে সয়াবিন ও পামওয়ের বেচাকেনা করবেন।

খাতুনগঞ্জ ব্যবসায়ী সমিতিরও সভাপতি মাহবুবুল আলম বৈঠকে ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, আপনারা সরকার নির্ধারিত দরেই কারখানা থেকে ভোজ্যতেল কিনুন। আবার বিক্রির সময়ও সরকার নির্ধারিত দরের চেয়ে বেশি দরে বিক্রি করবেন না। সভায় খাতুনগঞ্জ বাণিজ্য ও শিল্প সমিতির জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি আবুল বশর চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ছগীর আহমেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলমগীর পারভেজসহ ব্যবসায়ী নেতারা বক্তব্য দেন।

সভায় উপস্থিত ছিলেন এমন একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, ব্যবসায়ী নেতাদের বক্তব্যের পর একাধিক ব্যবসায়ী তাদের বক্তব্যে বলেন, সরকার নির্ধারিত দরের চেয়ে ভোজ্যতেল পরিশোধন কারখানাগুলো বেশি দরে বিক্রি করলেও তারা কিনবেন না। একইভাবে বিক্রিও করবেন না। এ অবস্থায় ব্যবসায়ী নেতাদের বৈঠক থেকে যে আহ্বান জানানো হয়েছে তা কতটুকু কার্যকর হবে তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

প্রসঙ্গত: এ সপ্তাহে পাইকারি বাজারটিতে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের কর্মকর্তারা অভিযান চালান। গত বুধবারও এক ব্যবসায়ীকে সরকার নির্ধারিত দরের বাইরে ভোজ্যতেল বিক্রি করায় ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এর পাশাপাশি জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরও চট্টগ্রামে সম্প্রতি এস আলমের অয়েল রিফাইনারিতে পরিদর্শন করে কিছু অনিয়ম দেখতে পেয়েছেন এবং তা সংশোধনের জন্য বলেছেন। এমন পরিস্থিতিতে চট্টগ্রামে ববসায়ী নেতারা নিজেদের মধ্যে মিটিং করে সরকারি আইন-কানুন মানার জন্য ববসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানান।

সভায় বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আবুল বশর চৌধুরী বলেছেন, ‘সরকার যখন দর বেঁধে দিয়েছে, তখন আমরা মানতে বাধ্য।’

সরকারি সংস্থাগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আইন অনুযায়ী, আমদানি ও পাইকারি পর্যায়ে কোন পণ্য কত দিন রাখা যাবে, তা সুনির্দিষ্টভাবে তুলে ধরে নীতিমালা প্রণয়ন করা হলে ব্যবসায়ীদের মধ্যে সচেতনতা বাড়বে।

উল্লেখ্য, সরকারের পক্ষ থেকে গত ৬ ফেব্রুয়ারি ভোজ্যতেলের দাম নির্ধারণ করে দেয়। সে অনুযায়ী, মিলগেটে সয়াবিনের দর ১৪০ টাকা এবং খুচরায় খোলা সয়াবিনের দর ১৪৩ টাকা। পাম তেলের মিলগেটে দর লিটারপ্রতি ১৩০ টাকা এবং খুচরায় তা ১৩৩ টাকা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ