শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫:২৯ পূর্বাহ্ন
add

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ডি মারিয়া

রিপোটারের নাম / ৬২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : বুধবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
add

প্যারিস সেন্ট জার্মেই (পিএসজি) গত সোমবার জানিয়েছে, ইবিজা থেকে ছুটি কাটিয়ে ক্লাবে এসে কোভিড-১৯ পরীক্ষায় তাদের দুজন খেলোয়াড় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। ক্লাব কৃর্তপক্ষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত খেলোয়াড়দের নাম প্রকাশ না করলেও বিভিন্ন গণমাধ্যমের তথ্যসূএ বলছে আক্রান্ত খেলোয়াড় দুজন হলেন পিএসজি মিডফিল্ডার অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া ও লিওনার্দো পেরেদেস।

এর আগে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে ১-০ গোলে হেরে অবসাদ ভুলতে পিএসজির বেশ কজন তারকা ফুটবোলার ছুটি কাটাতে স্প্যানিশ দ্বীপ ইবিজিয়ায় যান। যাদের মধ্যে ছিলেন পিএসজির সুপার স্টার নেইমার, কেইলর নাভাস ও অ্যান্ডার হেরেরার। যার ফলে ব্রাজিলিয়ান এই তারকার ও করোনা আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনাকে উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না। কেননা ছুটির সময় পিএসজির এই তারকারা একে অন্যের সান্নিধ্যে এসেছেন । তাই সবাইকেই এখন বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে।

এদিকে ক্লাবের সদস্যদের বেলারসিয়া অইসল্যান্ডে যাওয়ার অনুমতি দিয়েছেন কে এ নিয়ে অভিযোগ টেনেছে লা ইকিউপে। যদিও পিএসজির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে আক্রান্ত দুজন খেলোয়াড় এখন পর্যন্ত সুস্থ রয়েছেন এবং তাদেরকে নিবির পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। করোনা আক্রান্ত হওয়ায় তাদের এখন নিয়মিতই সাস্থ্য পরীক্ষার মধ্য দিয়ে যেতে হবে। চলতি মৌসুমের প্রথম ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১০ সেপ্টেম্বর লেন্সের বিপক্ষে। যে ম্যাচে করোনার কারণে থমাস তুখেলের দলে খেলতে পারবেন না ডি মারিয়া ও ব্রাজেলিয়ান ফরওয়ার্ড নেইমার।

উল্লেখ্য, বার্য়ানের কাছে চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপা হারিয়ে অশ্রুসিক্ত বিদায় নিতে হয়েছিল ২৮ বছর বয়সি পিএসজি তারকাকে। পরে ক্লাবটির অফিসিয়াল ম্যাগাজিনে নেইমার জানান, আমি চলতি মৌসুমে পিএসজির জার্সি গায়ে জড়িয়ে মাঠে নামতে চাই এবং আমার একমাএ লক্ষ্য হচ্ছে চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপা অর্জন। নেইমার আরো যোগ করেন, আমি পিএজির হয়ে যে কোনো কিছু করার জন্য প্রস্তুত আছি এবং আমি এই ক্লাবের ইতিহাসে আমার নামটিকে দেখতে চাই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১৭৮,৪৪৩
সুস্থ
৮৬,৪০৬
মৃত্যু
২,২৭৫

বিশ্বে

আক্রান্ত
৩২,৩৮৭,৯০৮
সুস্থ
২৩,৮৯৭,০৬১
মৃত্যু
৯৮৬,৯২৯